আজ শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ ইং

ঘণ্টা বাজালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা



অনলাইন ডেস্কঃ টেস্ট ক্রিকেট ঘিরে ভক্তদের এমন উচ্ছ্বাস সর্বশেষ কবে দেখা গেছে মনে করা কঠিন। বিশেষত ভারতীয় উপমহাদেশে। এখানে টি-২০ কিংবা ওয়ানডে ক্রিকেট ঘিরে এমন উচ্ছ্বাস দেখা যায়। সেটাই যেন স্বাভাবিক। অল্প সময়ের খেলা, বেশি রোমাঞ্চ। কিন্তু সৌরভ গাঙ্গুলি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রেসিডেন্ট হয়ে পুরো চিত্রটা বদলে দিয়েছেন। ভারত-বাংলাদেশের ক্রিকেট ভক্তরা তাই টেস্ট ক্রিকেট নিয়ে মেতেছে। আলাদা করে বললে গোলাপি বলের দিবা-রাত্রির টেস্ট নিয়ে।

ইডেন গার্ডেনসে ঐহিত্যবাহী ঘণ্টা বাজিয়ে বাংলাদেশ-ভারতের গোলাপি বলের টেস্টের যাত্রা শুরু করেন বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার সঙ্গে ঘণ্টা বাজান পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিও। আর পাশে ছিলেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলি, বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ও ভারতের সাবেক তারকা ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার।

গোলাপি বলের ঐতিহাসিক কলকাতা টেস্টকে স্মরণীয় করে রাখতে নেওয়া হয়েছে সাতটি বিশেষ পদক্ষেপ। এর মধ্যে শুরুতে পুলিশ ব্যান্ড শো’ করে। দ্বিতীয় ধাপে বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভারতীয় ক্রিকেটারদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন দেশটির অধিনায়ক বিরাট কোহলি। একইভাবে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন মুমিনুল হক।

তৃতীয় ধাপে দুপুর একটায় স্বর্ণের মুদ্রা দিয়ে টস হয় এবং দু’দলের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। চতুর্থ ধাপে বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ঘণ্টা বাজান।

এছাড়া পঞ্চম ধাপে মধ্যাহ্ন বিরতির সময় ভারতীয় ক্রিকেটের সাবেক পঞ্চ পাণ্ডব সৌরভ গাঙ্গুলি, শচীন টেন্ডুলকার, রাহুল দ্রাবিড়, ভিভিএস লক্ষ্মণ এবং অনিল কুম্বলে বিশেষ আলোচনায় যোগ দেবেন।

ষষ্ঠ ধাপে ভারতের সকল টেস্ট অধিনায়ক এবং বাংলাদেশের হয়ে প্রথম টেস্ট খেলা দলের সদস্যদের সম্মাননা দেওয়া হবে। তাদের অনেকেই এরই মধ্যে কলকাতা পৌঁছেছেন। আর শেষ ধাপে সঙ্গীত পরিবেশন করবেন বাংলাদেশের সঙ্গীত শিল্পী রুনা লায়লা এবং ভারত তথা কলকাতার সঙ্গীত শিল্পী এবং সুরকার জিৎ গাঙ্গুলি।