আজ শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ ইং

জেলা আ’লীগের সভাপতি পদে মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীকে নিয়ে আশাবাদী দলীয় নেতাকর্মী

অনলাইন ডেস্কঃ দীর্ঘ ১১ বছর পর আগামী ৫ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন। এই সম্মেলনকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মধ্যে বিরাজ করছে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা। আসন্ন সম্মেলনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে কারা আসছেন এ নিয়ে আলোচনা পুরো সিলেট জেলার প্রতিটি জনপদে। সভাপতি পদে জেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান সহ সভাপতি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী এম.পি’র নাম জোরেশোরে উচ্চারিত হচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেইসবুকে দলীয় নেতাকর্মীরা মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীকে সভাপতি হিসেবে দেখতে চাই এমন ব্যানার ও ফেষ্টুন দিয়ে নিজ নিজ আইডিতে প্রচার করছেন । পাশাপাশি দক্ষিণ সুরমা,ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জ সহ জেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ব্যানার, ফেষ্টুন টানিয়ে নিজেদের দাবী জনসম্মুখে তুলে ধরছেন। সম্মেলনের তারিখ যতই ঘনিয়ে আসছে নেতাকর্মীদের এমন সরব প্রচারণা আরো বৃদ্ধি পাচ্ছে।

দলীয় নেতাকর্মীদের ভাষ্যমতে সিলেট-৩ আসন থেকে ৩ বারের সংসদ সদস্য, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের দীর্ঘদিনের সহ-সভাপতি,বাংলাদেশের অন্যতম ক্লিন ইমেজধারী রাজনীতিবিদ,শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদের কেন্দ্রীয় মহাসচিব জননেতা মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী এম.পি। দলীয় কর্মকান্ডসহ প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার মিশন ও ভিশন বাস্তবায়নে এক নিবেদিত প্রাণ ব্যক্তিত্ব। উন্নয়ন কর্মকান্ডের সফল বাস্তবায়নে এক নির্ভিক সৈনিক হিসেবে দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন। তার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে দক্ষিণ সুরমা-ফেঞ্চুগঞ্চ ও বালাগঞ্জ আওয়ামীলীগ আজ সুশৃঙ্খল ও সুগঠিত। প্রতিটি জাতীয় এবং দলীয় কর্মসূচী বাস্তবায়নে এসব উপজেলার নেতাকর্মীদের উপস্থিতি সকলের নজর কাড়ে। বিশেষ করে সদ্য সমাপ্ত দক্ষিণ সুরমা উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন তার উৎকৃষ্ট প্রমাণ। জাতীয় এবং স্থানীয় নেতৃবৃন্দ সম্মেলনে মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী’র দিকনিদের্শনা লক্ষ্য করেছেন। সিলেটের বিভিন্ন উপজেলায় সম্মেলনকালিন সময়ে কিছুটা ক্রটি বিচ্যূতির সৃষ্টি হলেও দক্ষিণ সুরমা এক্ষেত্রে সম্পুর্ণ প্রশংসার দাবীদার। তার এ দক্ষ নেতৃত্ব গোটা সিলেট জেলায় প্রসারিত হলে দলীয় কর্মকান্ড শুধু বেগবান হবেনা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশন বাস্তবায়ন আরো সহজতর হবে বলে সচেতন মহল মনে করছেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ও প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশন বাস্তবায়নের এক সহযাত্রী হিসেবে মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী জনগনের ভালবাসাকে পুজি করে একজন সফল রাজনীতিবিদ হিসেবে ইতিমধ্যে সকলের প্রশংসা কুড়াতে সক্ষম হয়েছেন। একজন সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচনী এলাকার জনসাধারণের সুখ দুঃখের সাথী হতে প্রতি সপ্তাহে সিলেটে অবস্থান করেন।  দলীয় নানা কর্মসূচী বাস্তবায়ন ও উন্নয়ন কর্মকান্ডের দেখাশুনা করতে সপ্তাহে নিজ নির্বাচনী এলাকায় তার অবস্থান গোটা সিলেটবাসীর নজর কেড়েছে। এলাকায় অবস্থানকালিন সময়ে দলীয় নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের জনসাধারণ সহজেই যেকোন বিষয়ে তাঁর সাথে সাক্ষাত করতে পারেন। ফলে এ নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহের কমতি নেই।

সুধীমহলের মতে, একজন দলীয় সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়নে সর্বশ্রেণীর মানুষকে সাথে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। সিলেট-৩ নির্বাচনী এলাকায় বাস্তবায়িত এবং বাস্তবায়নাধিন বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প তার সফল প্রমাণ। যোগাযোগ, শিক্ষা, চিকিৎসাসহ  বিভিন্ন অবকাঠামোগত উন্নয়নে মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী এমপি এক সফল নাম। এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকলে সিলেট-৩ নির্বাচনী এলাকা গোটা দেশের মধ্যে অন্যতম উন্নয়নশীল এলাকা হিসেবে পরিচিতি লাভ করবে।  

দক্ষিণ সুরমা উপজেলা আওয়ামীলীগের নবনির্বাচিত সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা হাজী সাইফুল আলম বলেন, মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী এম.পি আওয়ামীলীগের একজন নিবেদিত প্রাণ ও যোগ্য নেতা। জেলা’র সহ সভাপতি দায়িত্ব পালনকালিন সময়ে তিনি সিলেটের প্রতিটি উপজেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগি সংগঠনগুলোকে যেভাবে সুসংগঠিত করেছেন, সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পেলে এ কার্যক্রম আরো বেগবান হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এ বিভাগের আরোও সংবাদ