আজ মঙ্গলবার, ৭ এপ্রিল ২০২০ ইং

দেশনেত্রীর মুক্তির আন্দোলনকে বেগবান করতে তৃণমূলকে ঐক্যবদ্ধ করাই আমার মূল লক্ষ্য-কামরুল হুদা জায়গীরদার

অনলাইন ডেস্ক: সিলেট জেলা বিএনপির আহবায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার বলেছেন, দেশনেত্রীর মুক্তির আন্দোলনকে আরো বেগবান করতে তৃণমূলকে ঐক্যবদ্ধ করাই আমার মূল লক্ষ্য। কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের নিদের্শ মোতাবেক তৃণমূলের মতামতকে প্রাধাণ্য দিয়ে সকলের অংশগ্রহণের ভিত্তিতে সিলেটে বিএনপির একটি শক্তিশালী কমিটি উপহার দিতে ২৪সদস্যের আহবায়ক কমিটি কাজ করে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে সিলেট জেলার আওতাধিন ১৮ উপজেলা ও পৌর বিএনপির কমিটি বিলুপ্ত করে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। অনুমোদিত কমিটিগুলো হল: সিলেট সদর উপজেলা, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা, কানাইঘাট উপজেলা, কানাইঘাট পৌরসভা, জকিগঞ্জ উপজেলা, জকিগঞ্জ পৌরসভা, জৈন্তাপুর উপজেলা, গোয়াইনঘাট উপজেলা, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা, বিশ^নাথ উপজেলা, বিশ^নাথ পৌরসভা, ওসমানীনগর উপজেলা, বালাগঞ্জ উপজেলা, গোলাপঞ্জ উপজেলা, গোলাপগঞ্জ পৌরসভা, বিয়ানীবাজার উপজেলা, বিয়ানীবাজার পৌরসভা, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা।
সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি ও সিলেট জেলা ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কামরুল হুদা জায়গীরদার একান্ত আলাপকালে জানান, প্রাথমিক সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে তৃণমূলে নতুন নেতৃত্বের সৃষ্টি করতে আহবায়ক কমিটি উপজেলা,পৌর, থানা,ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড শাখার নেতৃবৃন্দকে প্রাধান্য দিয়ে নবীণ ও প্রবীণের সমন্বয়ে আগামী কমিটি গঠিত হবে। আগামী দিনের আন্দোলন সংগ্রামে নবগঠিত কমিটির সদস্যরাই হবে জাতীয়তাবাদী শক্তির মূল প্রাণ। দেশের কল্যাণকামী মানুষদের সাথে নিয়ে অবৈধ সরকার বিরোধী সকল কার্যক্রম প্রতিহত করতে কেন্দ্র ঘোষিত সকল কর্মসূচী বাস্তবায়ণে যাদের অংশগ্রহণ হবে মূল লক্ষ্য। তিনি বলেন, সিলেটবাসীর প্রাণপ্রিয় নেতা এম ইলিয়াছ আলী, ছাত্রদল নেতা ইফতেখার হোসেন দিনার, জুনেদ, গাড়ীচালক আনছার আলী সহ অন্যান্য গুমকৃত নেতৃবৃন্দকে ফিরিয়ে আনাসহ তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে যারা এগিয়ে আসবে তাদের নিয়েই আমাদের আগামী পথচলা।


তিনি আরো বলেন, দলীয় ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে ব্যক্তি স্বার্থে উর্ধ্বে উঠে দেশের আপামর জনসাধারণের কল্যাণে কাজ করাই হবে জাতীয়তাবাদী দলের প্রতিটি নেতাকর্মীর মূল উদ্দেশ্য।


উল্লেখ্য, গত ২০১৯সালের ১লা অক্টোবর কামরুল হুদা জায়গীরদারকে আহবায়ক করে ২৫সদস্য বিশিষ্ট সিলেট জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দিয়েছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আহবায়ক কমিটির সদস্যরা হলেন- আবুল কাহের চৌধুরী শামীম, অ্যাডভোকেট আবদুল গফফার, আশিক উদ্দিন চৌধুরী, আলী আহমদ, কাইয়ুম চৌধুরী, অধ্যাপিকা সামিয়া চৌধুরী, অ্যাডভোকেট আশিক চৌধুরী, মইনুল হক চৌধুরী, আবদুল মান্নান, ফারুকুল ইসলাম ফারুক, শাহ জামাল নুরুল হুদা, মাহবুবুর রব চৌধুরী ফয়ছল, ইশতিয়াক আহমদ সিদ্দিকী, এমরান আহমদ চৌধুরী, নাজিম উদ্দিন লস্কর, সিদ্দিকুর রহমান পাপলু, মাজহারুল ইসলাম ডালিম, অ্যাডভোকেট হাসান আহমদ পাটোয়ারী রিপন, আব্দুল আহাদ খান জামাল, মাহবুবুল হক চৌধুরী, আবুল কাশেম, শামিম আহমেদ ও আহমেদুর রহমান চৌধুরী।

এ বিভাগের আরোও সংবাদ